তেহরানের একটি মসজিদে তৈরি হচ্ছে মাস্ক 2

তেহরানের একটি মসজিদে তৈরি হচ্ছে মাস্ক

ইরানের তেহরানের একটি মসজিদে তৈরি হচ্ছে মাস্ক। সুরক্ষার এই জিনিসটি তৈরির কাজে করে যাচ্ছেন স্থানীয় মহিলারাই।

সেলাই মেশিন জোগাড় করে চলছে মারণ করোনার বিরুদ্ধে বাঁচার লড়াই শুরু করেছেন তারা। গোটা মসজিদই পরিণত হয়েছে মাস্ক তৈরির কারখানায়। করোনা যুদ্ধে এমনই এক ব্যতিক্রমী এক ছবি ইরানের তেহরানের একটি মসজিদে।

ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে একসাথে কাজ করছেন দেশের সবাই। ইতিমধ্যেই ইরানের ৭০ হাজারের বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩ হাজার।

উদ্ভুত পরিস্থিতিতে ইরান জুড়ে মাস্কের আকাল দেখা দিয়েছে। প্রকট চাহিদার তুলনায় জোগান কম থাকায় অনেকেই মাস্ক পাচ্ছেন না। বাধ্য হয়ে কাপড়ে মুখে ঢেকে সংক্রমণ থেকে বাঁচার চেষ্টা ইরানবাসীর।

তেহরানের ওই মসজিদ কর্তৃপক্ষ এই পরিস্থিতিতে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আতঙ্কে মসজিদে সবরকম ধর্মীয় উপাচার বন্ধ করেছে। তবে মাস্ক তৈরির জন্য মসজিদের দরজা খুলে দেওয়া হয়েছে। করোনার সঙ্গে প্রবল লড়াইয়ে মাস্কের ব্যবহার একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক।

ফ্রান্সভিত্তিক একটি অনলাইনের খবরে বলা হয়, মসজিদের মধ্যেই যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে মাস্ক তৈরির কাজ। ধর্মীয় উপাসনালয়ে এ এক বাঁচার লড়াই। এগিয়ে এসেছেন এলাকার বহু মহিলা। মানবসভ্যতাকে বাঁচানোর এই লড়াইয়ে মহিলাদের সবরকম সহযোগিতা করছেন এলাকার পুরুষরাও। আপাতত ১৫ জন মহিলা সেখানে সেলাইয়ের মেশিন নিয়ে নিরন্তর মাস্ক সেলাই করে যাচ্ছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

16 − 1 =