ডিম

প্রতি পিস ডিমের দাম মাত্র ৩ টাকা!

প্রতি পিস ডিমের দাম মাত্র ৩ টাকা। সে হিসেবে ১ হালি ডিম ১২ টাকা। ১০০ পিস মাত্র ৩০০ টাকা।

মুরগি ও ডিমের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস ছড়ায়। এমন গুজবে উৎপাদিত ডিম ও মাংসের বাজার নেমে এসেছে অর্ধেকে। এতে চরম লোকসানের মুখে পড়েছে গাজীপুরের খামারিরা।

ইতোমধ্যে বন্ধে হয়ে গেছে অনেক ছোট খামার।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডিম-মুরগির মাংসে করোনা ঝুঁকি নেই। ডিম প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করে মানবদেহে রোগ প্রতিরোধে সক্ষমতা বাড়ায়।

খামারিরা বলছেন, আতঙ্কে চাহিদা কমায় গুণতে হচ্ছে লোকসান। এরই মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে স্বল্প মূলধনের অনেক খামার।

ভেটেরিনারি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডিম ও মুরগির মাংসে করোনা ভাইরাস একেবারেই ছড়ায় না। এমন গুজবে নিঃস্ব হচ্ছেন খামারিরা। এই অবস্থায় খামারিদের টিকিয়ে রাখতে সরকারের এ শিল্পে ভর্তুকি দেয়ার দাবি জানান তারা।

গাজীপুর জেলা পোল্ট্রি সামগ্রী বিক্রেতা বহুমুখী সমবায় সমিতি সাবেক সভাপতি এসএম মোকসেদ আলম বলেন, ‘প্রোটিনের চাহিদা মেটানোর জন্য এবং যুবকদের বেকার হয়ে যাওয়া রোধের জন্য সরকার কিছু ভর্তুকি দিলে ভালো হয়।’

গুজব প্রতিরোধে ব্যবস্থা নিয়ে জেলার সাত হাজার খামারি ও দেড় লক্ষাধিক পোল্ট্রি সংশ্লিষ্টদের রক্ষার দাবি পোল্ট্রি সমবায় সমিতির।

প্রসঙ্গত, সাধারণত পাইকারি মূল্যে ১শ’ ডিমের দাম আটশো টাকা। অথচ করোনা পরিস্থিতির কারণে এখন বিক্রি করতে হচ্ছে মাত্র তিনশ থেকে সাড়ে তিনশ টাকায়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × 1 =