ট্রেনের বগি আইসোলেশন 2

ট্রেনের বগি আইসোলেশন

আসামে স্টেডিয়ামের পর এবার ট্রেনের বগিকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে পরিণত করা হচ্ছে।

কোভিড নাইনটিনের প্রকোপ ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়লেও যেন বিনা চিকিৎসা মারা না যায় কেউ। সেই পরিকল্পনা থেকেই নেয়া হচ্ছে জরুরি পদক্ষেপ।

কোভিড নাইনটিনের বিস্তার ঠেকাতে তিন সপ্তাহের লকডাউন চলছে ভারতজুড়ে। বন্ধ সব গণপরিবহন। এ সময়ে অলস বসে থাকা ট্রেনগুলোকে আইসোলেশন ইউনিটে পরিণত করছে আসাম সরকার।

করোনা উপসর্গ থাকা রোগীদের আলাদা রাখতে, হাসপাতালে শয্যার সংকট সব দেশেই। আসামের হাসপাতালে যেনো বাড়তি চাপ না পড়ে; সে কারণেই ট্রেনের কোচে আইসোলেশনের ব্যবস্থা। যুক্ত হয়েছে সব রকম চিকিৎসা সরঞ্জাম।

সিনিয়র সেকশন ইঞ্জিনিয়ার দ্বিপন বার্মন বলেন, হাসপাতাল গুলোতে যদি রোগীদের জায়গা না হয় তাহলে এখানে আইসোলেশনে রাখা হবে। প্রতিটি কোচে কমপক্ষে ৯ জন করে রোগী রাখার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, শুধু আসামে নয়, পশ্চিমবঙ্গের কমপক্ষে ১৬টি অঞ্চলের ট্রেনে আইসোলেশন ওয়ার্ড স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। প্রতি সপ্তাহে ১০টি রেল বগিকে হাসপাতালে রূপ দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। এদিকে ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়েছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 + 10 =