বড়াইগ্রামে ফার্মেসীতে স্বর্দি-কাশি ও জ্বরের ওষুধ সঙ্কট 2

বড়াইগ্রামে ফার্মেসীতে স্বর্দি-কাশি ও জ্বরের ওষুধ সঙ্কট

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন বাজারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, হ্যান্ড ওয়াশ, বিøচিং পাউডার, স্যাভলন, ডেটলসহ জীবাণুনাশক সামগ্রী পাওয়া যাচ্ছে না।

একই সঙ্গে সর্দি-কাশি ও জ্বরের ওষুধের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে ফার্মেসিগুলোতে।

অবশ্য ব্যবসায়ীরা বলছেন, করোনা আতঙ্কে ক্রেতারা প্রয়োজনের তুলনায় বেশি কেনায় এ সংকট দেখা হয়েছে।

উপজেলার লক্ষীকোল বাজারের আরোগ্য বিতান, নাফিউ ফার্মেসী, সুমন মেডিসিন কর্ণার এবং বনপাড়া বাজারের আপেন ড্রাগস, মহিউদ্দিন ফার্মেসী, এবং রয়না বাজারের মিতু ফার্মেসিতে ক্রেতাদের ভীড় দেখা গেছে।

এসব ক্রেতাদের বেশিরভাগই সর্দি-কাশি জ্বর এবং সার্জিক্যাল মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, স্যাভলন, ডেটলসহ বিভিন্ন জীবাণুনাশক মালামাল খোঁজ করছেন।

ভরতপুর গ্রামের মজিবর রহমান এবং মৌখাড়া গ্রামের মতিউর রহমান সুমন বলেন, লক্ষীকোল বাজার ও মৌখাড়ার দোকান ঘুরে হ্যান্ডওয়াশ বা রিফিল এবং স্যানিটাইজার ও পাইনি।

লক্ষীকোল বাজারের নাফিউ ফার্মেসীর মালিক আহসান হাবিব জুয়েল জানান, করোনা আতঙ্কের কারণে সার্জিক্যাল মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বেশি বেশি কিনে নেয়ায় দোকান থেকে এসব ফুরিয়ে গেছে।

জ্বর, সর্দি, কাশি রোগের ওষুধেরও সঙ্কট দেখা দিয়েছে।কোম্পানির লোকদের কাছে অর্ডার দিয়েও এগুলো সাপ্লাই পাচ্ছি না।

মুদি ব্যবসায়ী শ্রী: বরুন কুন্ডু বলেন, এক দেড় সপ্তাহ আগেও হ্যান্ড ওয়াশ, স্যাভলন, ডেটল, ব্লিচিং পাউডার পর্যাপ্ত পরিমাণে ছিলো।

কিন্তু লোকজন বেশি করে কেনায় এসব পণ্য শেষ হয়ে গেছে।

কোম্পানীর লোকজনও অর্ডার নিতে আসছে না, এমনকি ফোন করেও মাল পাচ্ছি না।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. পরিতোষ রায় বলেন, হাসপাতালে এসব ওষুধের সরবরাহ আছে।

তবে এ সঙ্কট মুহুর্তে ব্যবসায়ীদেরকে কোম্পানীর সঙ্গে যোগাযোগ করে এসব ওষুধ পর্যাপ্ত পরিমাণে রাখার পরামর্শ দেন।

-আসাদুল ইসলাম আসমত

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 − 4 =