কে এম নূরু হুদা

‘ভোটের কার্যক্রমে থাকতে পারবেন না এমপিরা’

(সিইসি) কে এম নূরু হুদা জানিয়েছেন, ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে সংসদ সদস্যরা নির্বাচন সমন্বয় কিংবা ভোটের ঘরোয়া বা বাইরের কোনও কার্যক্রমেই অংশ নিতে পারবেন না।

আজ শনিবার (১১ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁও নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান সিইসি। এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আওয়ামী লীগের এক প্রতিনিধি দলের সঙ্গে সিইসি ও কমিশনারদের বৈঠক হয়।

বৈঠক শেষে সিইসি বলেন, এমপিরা নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা চালাতে পারবেন না। কিন্তু নির্বাচনী এলাকায় রাজনৈতিক কর্মসূচি করতে পারবেন।

আগামী ৩০ জানুয়ারি ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু এবং তোফায়েল আহমেদকে ঢাকা দক্ষিণ ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের নির্বাচনী সমন্বয়কের দায়িত্ব দেয় আওয়ামী লীগ।

সেক্ষেত্রে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন হয়েছে কিনা, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, আওয়ামী লীগ কী দায়িত্ব দিয়েছে, তা আনুষ্ঠানিকভাবে ইসি জানে না। এ ব্যাপারে ইসি অবহিত হলে নিষেধ করা হবে।

সিইসি বলেন, আচরণবিধি অনুসারে, নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে বাধা রয়েছে— এমন ব্যক্তিরা প্রার্থীর পক্ষে কথা বলতে পারবেন না। ভোট চাইতে পারবেন না। তবে তাঁরা মুজিব বর্ষের মতো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশ নিতে পারবেন।

ইসির সঙ্গে বৈঠকে আওয়ামী লীগের পক্ষে ছিলেন দলের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য শেখ সেলিম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম।

সিইসির আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা হয় তোফায়েল আহমেদের। তিনি জানান, নির্বাচনী আচরণবিধির ব্যাখ্যা জানতে তাঁরা এসেছিলেন। তিনি বলেন, নির্বাচনী সমন্বয়কারী হিসেবে সংসদ সদস্যদের কার্যালয়ে বসে পরিকল্পনা করতে বাধা নেই। তবে নির্বাচনী প্রচারে যাওয়া যাবে না। সমন্বয়কারীরা ভোট চাওয়া ছাড়া অন্য সব কিছু করতে পারবেন। তাঁরা কর্মীদের দিক-নির্দেশনা দিতে পারবেন।

তিনি জানান, বৈঠকে মাহবুব তালুকদার ছাড়া বাকি কমিশনাররা একমত হয়েছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seventeen − 16 =