ট্রাম্প

হামলার পর যা বললেন ট্রাম্প

ইরানের মিসাইল হামলার পর প্রেসিডেন্ড ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, অল ইজ ওয়েল! (সব ঠিক আছে)। স্থানীয় সময় পৌনে ১০টার দিকে টুইটারে আরো একবার নিজের শক্তিশালী সেনাবাহিনীর কথা স্মরণ করিয়ে দেন ট্রাম্প।

তিনি বলেন, সব ঠিক আছে! ইরাকে দুটি সেনাঘাঁটিতে মিসাইল ছুড়েছে ইরান। এখন হতাহত এবং ক্ষয়ক্ষতির হিসাব করা হবে। এখন পর্যন্ত সবকিছু ভালোই চলছে। আমাদের আছে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী এবং সেরা অস্ত্রে সজ্জিত সেনাবাহিনী। আগামীকাল সকালে আমি একটি বিবৃতি দেব।

এর আগে বুধবার ভোরে এক ঘণ্টার ব্যবধানে দুটি মার্কিন ঘাঁটিতে অন্তত এক ডজন মিসাইল হামলা চালায় ইরান। ইরানের ভূমি থেকে ইসলামী রেভল্যুশনারি গার্ডের সদস্যরা মিসাইলগুলো ছোড়ে বলে ফার্স নিউজের খবরে বলা হয়েছে।

হামলার পরপরই ইরান এবং যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বিবৃতি দেয়া হয়। পেন্টাগন জানায়, ইরবিল ও আল-আসাদ বিমান ঘাঁটিতে মিসাইল হামলা হয়েছে। ইরান থেকেই মিসাইলগুলো নিক্ষেপ করা হয়েছে।

ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়েছে, দেশটির শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে ড্রোন হামলায় হত্যার জবাব হিসাবে এই হামলা করা হয়েছে।

হামলার পর ইরানের ইসলামী রেভল্যুশনারি গার্ড (আইআরজিসি) এক বিবৃতিতে বলেছে, লেফটেন্যান্ট জেনারেল কাসেম সোলাইমানির ওপর আগ্রাসী মার্কিন সেনাদের সন্ত্রাসী ও অপরাধমূলক হামলার কঠোর জবাব দিতে এইন আল-আসাদ ঘাঁটিকে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেয়া হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, জেনারেল সোলাইমানিকে হত্যার কাপুরুষোচিত পদক্ষেপের ‘কঠোর প্রতিশোধ’ নেয়ার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। আজ (বুধবার) ভোরে ইরাকে অবস্থিত মার্কিন বিমানঘাঁটি ‘এইন আল-আসাদ’র ওপর ভূমি থেকে ভূমিতে নিক্ষেপযোগ্য অসংখ্য ক্ষেপণাস্ত্র বর্ষণ করে ঘাঁটিটিতে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

তারা অভিযানটির নাম দিয়েছে ‘শহীদ সোলাইমানি’।

অপরদিকে মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগনও জানিয়েছে, তাদের দুটি ঘাঁটিতে এক ডজনেরও বেশি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হেনেছে।

হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র স্টেফানি গ্রিশাম বলেছেন, ইরাকের একটি মার্কিন ঘাঁটিতে হামলার খবরের ব্যাপারে আমরা সচেতন রয়েছি। প্রেসিডেন্ট এ বিষয়ে অবহিত হয়েছেন এবং তিনি গভীরভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন ও জাতীয় নিরাপত্তা দলের সঙ্গে আলোচনা করছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

four + sixteen =