সুনামগঞ্জের মইনপুরে এক্সেভেটর মেশিন জ্বালিয়ে দিয়েছে গ্রাম্য চাঁদাবাজরা 2

সুনামগঞ্জের মইনপুরে এক্সেভেটর মেশিন জ্বালিয়ে দিয়েছে গ্রাম্য চাঁদাবাজরা

বোবা যন্ত্রেরও শত্রু থাকতে পারে সরজমিনে স্বচক্ষে না দেখলে যেন বিশ্বাস করাই যায়না।

এই কথাটাকে বাস্তবে প্রমাণ করে দিল সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার সুরমা ইউনিয়নের মইনপুর গ্রামের একদল চিহ্নিত গ্রাম্য চাঁদাবাজ।

চিহ্নিত এ চক্রটি ৩০ মার্চ সোমবার দিবাগত রাত সোয়া ৮টায় মইনপুর গ্রামের পশ্চিম দিকে ইব্রাহিমপুর মৌজায় অবস্থিত রেকর্ডীয় মালিকানাধীন জায়গার উপর মাটি কাটার কাজে নিয়োজিত ৩০ লাখ টাকা মূল্যের একটি ক্যাট গাড়ি (এক্সেভেটর মেশিন) জ্বালিয়ে দিয়েছে।

মেশিনটির স্থানীয় ভাড়াটে মালিক মইনপুর গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানের পুত্র শিপু মিয়ার সাথে গ্রাম্য বিরোধের জের ধরে চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীরা মেশিনটির গায়ে খড় রেখে কেরোসিন ঢেলে পরিকল্পিতভাবে অগ্নি সংযোগের ঘটনা সংগঠিত করে।

ঘটনাটি দেখতে পেরে গ্রামের লোকজন দৌড়ে ঘটনাস্থলে পৌছার আগেই অগিś সংযোগকারীরা পালিয়ে যায়। কিন্তু আগুনে পুড়ে মেশিনটির সম্পুর্ণ ওয়ারিং, ফুয়েল পাম্প, মেনিপুল ও ফাইপসহ মূল্যবান যন্ত্রাংশ ছাইভস্ম হয়।

এ ঘটনার দায়ে শিপু মিয়া বাদী হয়ে মইনপুর গ্রামের মৃত আব্দুল জলিলের পুত্র ফয়জুল (৪৫) ও তবাই উল্লা (৪০) এবং মমশি^র মিয়ার পুত্র লাল মিয়া (৩৮) সহ তাদের অপরাপর অজ্ঞাত অন্যান্য চাঁদাবাজ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার এসআই সাইফুল ইসলাম বুধবার বিকেলে ঘটনাস্থলে সরজমিনে তদন্ত করে আসেন।

এক্সেভেটর মেশিনটির মূল মালিক হচ্ছেন টাঙ্গাইল জেলার ঘাটাইল উপজেলা সদর নিবাসী মোঃ রুমান মিয়া। তার কাছ থেকে মাটি কাটার ব্যবসা পরিচালনার জন্য ভাড়া আনেন মইনপুর নিবাসী শিপু মিয়া।

মেশিনের চালক টাঙ্গাইল জেলার ভুয়াপুর থানার নিকলা নয়াপাড়া নিবাসী ইনসান আলীর পুত্র মোঃ তারিকুল ইসলাম (২৬) বলেন, আমি মাটি কাটার কাজ পরিচালনা করা অবস্থায় ঐ লৌকগুলো প্রায়ই আমার কাছে বিভিন্ন দাবীসহ আমাকে হুমকী প্রদর্শন করে আসছিল।

মেশিনের ম্যাকানিক সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের কলাউড়া নিবাসী নুরুল ইসলামের পুত্র নূর আহমেদ (৩৫) জানান, মেশিনটির ভেতরের মূল্যবান যন্ত্রাংশ পরিকল্পিতভাবে অগ্ন সংযোগ করে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এতে প্রায় ২৫ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধিত হয়েছে।

সুরমা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুছ সাত্তার ডিলার বলেন, বোবা যন্ত্রের সাথে এরকম শয়তানী যারা করেছে আমি তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাই।

সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শহীদুর রহমান বলেন, পুলিশ ঘটনাটি তদন্ত করছে।

এ ব্যাপারে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

-আল-হেলাল

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 − seventeen =