সিনেমার নাম ‘করোনা’ 2

সিনেমার নাম ‘করোনা’

এবার তৈরি হচ্ছে সিনেমা। নাম ‘করোনা’। ‘ফিয়ার ইজ আ ভাইরাস’ বা ভয় একটি ভাইরাস শ্লোগান নিয়ে সিনেমাটি নির্মাণ করেছেন কানাডিয়ান-পার্সিয়ান নির্মাতা মোস্তফা কেশভারি।

সিনেমাটিতে করোনা পরিস্থিতিতে লিফটে আটকা পড়া কিছু মানুষের স্নায়ুচাপ ও অন্যান্য পারিপার্শ্বিক পরিস্থতি তুলে ধরা হয়েছে। উঠে এসেছে বর্ণবাদের মতো বিষয়ও।

দ্য গার্ডিয়ানকে পরিচালক কেশভারি জানান, আমার সিনেমার চরিত্রগুলোর মতো আমিও একবার লিফটে আটকা পড়েছিলাম। আর সেখানেই চীনা পর্যটকদের ওপর হামলার একটি খবর পড়েছিলাম। ওই মুহূর্তে আমার শিরদাঁড়া বেয়ে নেমেছিল ভয়ের স্রোত। সেই অনুভূতি আমার মনের কোথাও না কোথাও লেগে ছিল। সেখান থেকেই এ রকম একটি সিনেমা বানানোর আইডিয়া মাথায় আসে।

ইতিমধ্যে মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটির ট্রেইলার। সেখানে দেখা গেছে, ভবনের লিফটে আটকা পড়েছে ছয় ব্যক্তি। ভবনটির লোকজন করোনায় আক্রান্ত। আটকে পড়া ব্যক্তিদের মধ্যে এক চীনা নারী কাশছেন। সবাই ধরে নিয়েছেন, তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে অন্যরা এখন কীভাবে এর থেকে বাঁচবেন? এই আতঙ্ক থেকে মানুষের মধ্যে ফুটে ওঠে বর্ণবাদী রূপ।

থ্রিলার ঘরানার এ সিনেমার শুটিং হয় কানাডার ব্রিটিশ কলম্বিয়ার ভ্যাঙ্কুভারে। ইতিমধ্যে মুক্তির অপেক্ষায় সিনেমাটি। ক্যামেরা হাতে কেবল সিঙ্গেল টেকেই চলচ্চিত্রটির সম্পূর্ণ দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে। এমনকি লিফটে আটকা পড়ার ভীতি এবং একই সঙ্গে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা কিংবা আতঙ্ক বস্তুনিষ্ঠভাবে ফুটিয়ে তুলতে নির্মাতা সংলাপে তাৎক্ষণিক পরিবর্তনও এনেছেন।

মোস্তফা কেশভারি জানান, এ ভাইরাস চীনে থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ছে। ফলে এটি আর এখন শুধু একটি জাতির সমস্যা নয়। সমগ্র মানবজাতিকে এখন সম্মিলিতভাবে এ ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে হবে। যখন ভাইরাসটি আক্রান্ত করার বেলায় কোনো বৈষম্য করছে না, সেখানে আমরা কেন নিজেদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করছি?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 − nine =