শাস্তি পেলেন বাংলাদেশ ও ভারতের পাঁচ ক্রিকেটার

শাস্তি পেলেন বাংলাদেশ ও ভারতের পাঁচ ক্রিকেটার

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ফাইনাল ম্যাচ শেষে অশোভন আচরণের কারণে বাংলাদেশ ও ভারতের পাঁচ ক্রিকেটারকে শাস্তি দিয়েছে ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি।

সেই ঘটনার ভিডিও ফুটেজ দেখে আইসিসি উভয় দলের পাঁচ খেলোয়াড়কে কয়েকটি ম্যাচ নিষিদ্ধ করেছে। এই ক্রিকেটাররা সামনের ওয়ানডে অথবা টি-টোয়েন্টি ম্যাচে এই নিষেধাজ্ঞার শাস্তি ভোগ করবেন।

আইসিসি’র শাস্তিপ্রাপ্তদের মধ্যে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের তিন ক্রিকেটার রয়েছেন। এদের মধ্যে ১০ ম্যাচ নিষিদ্ধ তৌহিদ হৃদয়, ৮ ম্যাচ নিষিদ্ধ শামীম হোসেন এবং ৪ ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন রকিবুল হাসান।

অপরদিকে শাস্তির আওতায় রয়েছে ভারতের দুই ক্রিকেটার। এর মধ্যে আকাশ সিং নিষিদ্ধ হয়েছেন ৬ ম্যাচ আর লেগস্পিনার রবি বিষ্ণুইকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে ৫ ম্যাচ।

আইসিসি জানিয়েছে, ফাইনাল ম্যাচ শেষে নিজেদের মধ্যে বিতর্ক এবং ধাক্কাধাক্কি এসব করে ক্রিকেটের ভাবমূর্তি নষ্ট করেছেন খেলোয়াড়রা।

বাংলাদেশ-ভারতের ফাইনালের ম্যাচ রেফারি গ্রায়েম ল্যাবরয় বলেছেন, বাংলাদেশের তিন ক্রিকেটার ও ভারতের দুই খেলোয়াড় আইসিসির বিধিবিধানের ২.২১ ধারা ভঙ্গ করেছেন।

ফাইনাল শেষে কী ঘটেছিল-

ফাইনালে ভারতকে হারানোর ম্যাচটা ছিল রোমাঞ্চে ভরপুর। বিশ্বকাপ জয় নিশ্চিত হতেই মাঠে বাঁধভাঙা উল্লাসে মেতে ওঠেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। ঠিক ওই মুহূর্তেই ঘটে ছোট্ট একটি ঘটনা। দুই দলের ক্রিকেটাররা জড়িয়ে পড়েন বাদানুবাদে। হালকা ধাক্কাধাক্কিও হয়।

এমনকি, এক পর্যায়ে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের কাছ থেকে পতাকা কেড়ে নেয়ার চেষ্টাও করেছেন এক ভারতীয় ক্রিকেটার। ভিডিওতে দেখা যায়, বাংলাদেশি পেসার শরিফুল ইসলামকে পেছন থেকে ধাক্কা দিচ্ছেন ভারতের একজন ক্রিকেটার। তখন হুট করেই দেখা গেল একটা জটলার মধ্যে প্রায় হাতাহাতির অবস্থা দুই দেশের খেলোয়াড়দের।

কোচিং স্টাফদের মধ্যস্থতায় থামে সে দফার ঝগড়া।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × two =