দৌলতদিয়ায় ফেরিতে লোড-আনলোডে বিঘ্ন 2

দৌলতদিয়ায় ফেরিতে লোড-আনলোডে বিঘ্ন

নদী ভাঙ্গনের কারণে দৌলতদিয়ায় তিনটি ফেরিঘাট বন্ধ রয়েছে। এতে ফেরি লোড-আনলোডে বিঘ্ন ঘটায় যানবাহন পারাপারও কমে গেছে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাটে ৬শতাধিক যানবাহন ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। ফেরি ঘাটের অদুরে মহাসড়কের উপর রয়েছে পণ্যবাহী ট্রাকে দীর্ঘ সারি। ফলে যানবাহন ঘাটে আটকে পড়া যানবাহন শ্রমিকদেরকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা অফিস সুত্রে জানা গেছে, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ-রুটের দৌলতদিয়া প্রান্তের ফেরি ঘাট এলাকায় গত বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) থেকে আবার নদী ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। হাঠাৎ করে দৌলতদিয়া ৩নং ফেরি ঘাট এলাকায় ভাঙ্গন রোধে নদীর পাড়ে ফেলা জিও ব্যগসহ বিস্তৃর্ণ এলাকা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। ফলে এ ঘাট দিয়ে গাড়ি লোড-আনলোড বন্ধ রয়েছে।

এছাড়া দৌলতদিয়ায় ১ ও ২ নং ফেরি ঘাট ও আশপাশের এলাকা গত (২ অক্টোবর) নদীতে চলে যাওয়ার পর থেকেই বন্ধ রয়েছে এ দু’টি ফেরি ঘাট। ফলে দৌলতদিয়ায় ১,২ ও ৩ নং ঘাট দিয়ে ফেরিতে যানবাহন লোড-আনলোড বন্ধ রাখা হয়েছে। এমতবস্থায় এখন দৌলতদিয়ায় ৬টি ফেরি ঘাটের মধ্যে ৩টি ফেরি ঘাট চালু রয়েছে। বাকী তিনটি ফেরি ঘাট বন্ধ রয়েছে। ফলে যানবাহন পারাপারে সমস্যা হচ্ছে। গাড়ী পারাপার কমে যাচ্ছে। দুই পারের টার্মিনালে জমা হয়ে আছে শত শত গাড়ি।

বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডি,জি,এম মো. জিল্লুর রহমান জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটের দৌলতদিয়ায় হঠাৎ করে ৩নং ফেরি ঘাটের পন্টুন এলাকার মাটি ধসে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। ফলে গত বৃহস্পতিবার থেকে ওই ঘাট দিয়ে ফেরিতে যানবাহন লোড-আনলোড বন্ধ রয়েছে। নদী ভাঙ্গনের কারণে এর আগেও আগেও আরো দু’টি ঘাট বন্ধ রয়েছে। ফলে এখন ৬টি ঘাটের মধ্যে ৩টি ঘাট চালু রয়েছে। এমতাবস্থায় ফেরি লোড-আনলোডের জন্য পন্টুন সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে সবগুলো ফেরি সার্ভিসে রাখা মুশকিল হয়ে পড়েছে। যে কারণে ৪/৫টি ফেরি ঘাটেই নোঙর করে রাখা হচ্ছে। ঘাট সংকট কেটে আবার সবগুলো ফেরি চলাচল করলে এ সমস্যা থাকবে না বলে তিনি জানান।

বিআইডব্লিউটিএর উপ-সহকারী প্রকৌশলী মকবুল হোসেন জানান, নদী ভাঙ্গনের কারণে রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাটের কাছে ব্যাপক নদী ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ইতমধ্যে ১ ও ২ নং ঘাটের মাঝামাঝি স্থান নদী গর্ভে চলে গেছে। ফলে এ দু’টি ঘাট প্রায় এক মাস ধরে বন্ধ রয়েছে। এর মধ্যে গত বৃহস্পতিবার ৩নং ফেরি ঘাটটি নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়লে ওই ঘাটটি বন্ধ রাখা হয়েছে।

এ ঘাটতি সচল করতে রাত-দিন কাজ করে যাচ্ছে আমাদের লোকজন। এখন দৌলতদিয়া ৬টি ঘাটের মধ্যে ৩টি ঘাট দিয়ে কোনরকম জোড়াতালি দিয়ে ফেরি লোড-আনলোড করানো হচ্ছে। ঘাটের ওজানে একটি চর ওয়াশ হয়ে যাওয়ায় যে ভাবে নদী ভাঙছে এভাবে নদী ভাঙ্গন অব্যহত থাকলে এবার দৌলতদিয়াতে ঘাট রাখা কঠিণ হয়ে পড়বে বলে জানান তিনি।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

20 − 9 =