বন্দুকযুদ্ধ

তিন জেলায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৩ : অস্ত্রসহ গুলি উদ্ধার

চট্টগ্রাম, গাজিপুর ও কুমিল্লায় পৃথক বন্দুকযুদ্ধে তিনজন নিহত হয়েছে।

প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর

চট্টগ্রাম  : ফটিকছড়ি উপজেলায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক যুবক নিহত হয়েছেন। র‌্যাবের দাবি, নিহত যুবক স্থানীয় সন্ত্রাসী। ঘটনাস্থল থেকে একটি একে-২২ অস্ত্র ও ৬৩ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার ভূজপুর থানার কোঠবাড়িয়া গ্রামের শিকদারপাড়া এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহত ব্যক্তির পরিচয় জানা যায়নি।

র‌্যাব-৭ এর মিডিয়া অফিসার সহকারী পুলিশ সুপার মো. মাশকুর রহমান জানান, গোপন খবর পেয়ে ভূজপুর থানার কোঠবাড়িয়া গ্রামের শিকদারপাড়া এলাকায় র‌্যাবের টহল দল অভিযান চালায়। এসময় অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের সঙ্গে গোলাগুলিতে ওই ব্যক্তি নিহত হয়।

নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পরে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে বলে জানান র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা।

গাজীপুর : গাজীপুরের সালনায় র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুক যুদ্ধে’ সুজন মিয়া নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। নিহত যুবক অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি করেছে র‌্যাব। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত সুজন মিয়া সিটি করপোরেশনের টঙ্গীর আরিচপুরের চাঁন মিয়ার ছেলে।

র‌্যাব-১ এর সহকারী পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান জানান, সিটি করপোরেশনের সালনা এলাকায় কয়েকজন অস্ত্র ব্যবসায়ী জড়ো হয়ে অস্ত্র কেনা বেঁচা করছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে অভিযান চালায়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে অস্ত্র ব্যবসায়ীরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে।

র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছুঁড়লে সুজন মিয়া গুলিবিদ্ধ হয় এবং অপর সহযোগীরা পালিয়ে যান। এসময় গোলাগুলিতে র‌্যাবের সৈনিক কামরুল ইসলাম আহত হন। পরে গুলিবিদ্ধ সুজন মিয়াকে উদ্ধার করে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজে নেয়া হলে সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঘটনাস্থল থেকে দুটি শর্টগান, ২টি ওয়ান শুটার, ৯ রাউন্ড কার্তুজ ও ১২ শ’ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

নিহত সুজনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ১৩টি মামলা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ১১টি মাদক, একটি অস্ত্র ও অপরটি হত্যা মামলা।

কুমিল্লা : কুমিল্লায় পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাসেল নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। এসময় পুলিশের ২ সদস্য আহত হয়েছে। বুধবার দিবাগত রাতে জেলার সদর উপজেলার গোমতী নদীর বেড়িবাঁধ সংলগ্ন শ্রীপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রাসেল জেলার সদর উপজেলার পাঁচচথুবী ইউনিয়নের দক্ষিণ বাগবের গ্রামের হারু মিয়ার ছেলে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান, একটি রামদা ও সাড়ে ৫ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে।

পুলিশ জানায়, জেলার সদর উপজেলার গোমতী নদীর বেরিবাধ সংলগ্ন শ্রীপুর এলাকায় কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী মাদক ভাগাভাগি করছে গোপন সূত্রে এমন তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার রাত দেড়টার দিকে মাদক উদ্ধারে অভিযানে যায় জেলা ডিবি পুলিশ। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশের উপর হামলা চালায়। এসময় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি ছুঁড়ে। একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ী রাসেল গুলিবিব্ধ হয়ে আহত হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জেলা ডিবির ওসি মো. মাঈন উদ্দিন খান জানান, নিহত রাসেল পুলিশের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে থানায় ৮-১০টি মামলা রয়েছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

one × three =