জামালপুরের ডিসির নারী কেলেঙ্কারী

ডিসি কবীরের নারী কেলেঙ্কারির সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি

জামালপুরের সাবেক জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরের বিরুদ্ধে উত্থাপিত নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি।

দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির সুপারিশ করে রবিবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন যুগ্ম-সচিবের নেতৃত্বে গঠিত এই তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছে বলে জানান সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্তি সচিব ।

ডিসি অফিসের এক নারী কর্মচারীর সঙ্গে ডিসি আহমেদ কবীরের ঘনিষ্ঠ অবস্থার একটি ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হলে দেশব্যাপী সমালোচনার ঝড় ওঠে। তখন এই ভিডিও নিয়ে প্রাথমিক তদন্তে ময়মনসিংহের বিভাগীয় কমিশনারও ঘটনার সত্যতা পেয়েছিলেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে তাৎক্ষণিকভাবে ডিসি আহমেদ কবীরকে প্রত্যাহার করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

ডিসির খাস কামরা নিয়েও সুপারিশ করেছে কমিটি। তদন্ত সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, ডিসির কাজের ধরন অনুযায়ী বিশ্রাম নেওয়ার জন্য খাস কামরা থাকতেই পারে। কিন্তু সেখানে দরজা বন্ধ করে খাট-পালঙ্কের আয়োজন না করে বড়জোর ইজি চেয়ার বা ডিভান টাইপের কিছু রাখা যেতে পারে।

জামালপুরের ডিসির কেলেঙ্কারির পর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছিলেন, দোষ প্রমাণিত হলে ডিসির (আহমেদ কবীরের) বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হবে। যাতে ভবিষ্যতে কেউ এ ধরনের কাজে যুক্ত না হয়।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের বলেছিলেন, দোষ প্রমাণিত প্রচলিত আইন অনুযায়ী সর্বোচ্চ শাস্তি দেওয়া হবে।

গত ২২ আগস্ট জামালপুরের ডিসি আহমেদ কবীর ও তার নারী অফিস সহায়কের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২৫ আগস্ট ডিসিকে প্রত্যাহার করে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পদায়ন করা হয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × 3 =