জেনে নিন ইয়ংম্যান্স ক্লাবে চালু হয় ক্যাসিনো 2

জেনে নিন ইয়ংম্যান্স ক্লাবে চালু হয় ক্যাসিনো

অন্যান্য ক্লাবের মত ফকিরেরপুল ইয়ংম্যান্স ক্লাবে ৯০ দশকের পরে রাজনীতিকরা যুক্ত হন। কিন্তু তারা নিজেদের আধিপত্য বিস্তার শুরু করে ২০১৬ সাল থেকে। তৎকালীন ক্লাব সভাপতি নাসিরুদ্দিন ইসলাম মল্লিক পিন্টুসহ পুরো প্যানেলকে অস্ত্রের মুখে বের করে ক্লাবটি দখল করেন, যুবলীগের সম্প্রতি বহিস্কৃত নেতা সম্রাটের সহযোগী খালেদ মাহমুদ ভুইয়া। আর ক্লাবে তাদের অনুপ্রবেশ ঘটান তৎকালীন সেক্রেটারি স্থানীয় যুবলীগ নেতা হাজী সাব্বির হোসেন। এরপরই ঢাক ঢোল পিটিয়ে ক্লাবটিতে উদ্বোধন করা হয়েছিল ক্যাসিনোর।

২০১৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি ফকিরেরপুল ইয়ংম্যান্স ক্লাবে চালু হয় ক্যাসিনো। সেদিন ব্যানার টাঙ্গিয়ে ফিতা কেটে এই ক্যাসিনোর উদ্বোধন করেন যুবলীগের বহিস্কৃত নেতা সম্রাট, খালেদ মাহমুদ ভুঁইয়া, হাজি সাব্বির হোসেন। তবে ক্যাসিনো চালুর প্রস্তুতি শুরু হয় তারও ছয় মাস আগে থেকে। খেলোয়াড়দের আবাসিক আয়োজন বাতিল করে হোটেলে স্থানান্তর করা হয়। খেরোয়াড়দের থাকার জায়গার একাংশতে ক্যাসিনোর বিশ্রামাগার ও কিছু অংশ গুদাম হিসেবে ব্যাবহার করা শুরু হয়।

ক্লাবের ফুটবল খেলার উন্নয়ন নয় নিজদের বিত্ত গড়তে ক্যাসিনো শুরু করেচিলেন প্রভাবশালীরা। যা থেকে খালেদ দৈনিক ১ লাখ ২০ হাজার ও সাব্বির তুলতেন ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা। প্রতিদিনই ক্যাসিনো তদারকি করতেন সাধারণ সম্পাদক সাব্বির।

স্থানীয়রা এবং ক্লাব সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ক্যাসিনোর কোন টাকাই ক্লাবের উন্নয়নে খরচ হতো না। হলে খেলার উন্নয়ন হতো। বরং ক্যাসিনো আসার পর বহু মানুষ খেলতে এসে নিঃস্ব হয়েছে। সেই টাকা গেছে কছিু কর্তার পকেটে। র‌্যাবের অভিযানের পর, ক্লাব এখণ বন্ধ থাকলেও দোকান থেকে হাজী সাব্বির মাসের ভাড়া ঠিকই উঠিয়ে নিচ্ছেন। তার সহযোগীরাও দখল করে রয়েছে ক্লাবের বেশ কিছু দোকান। আর এসবের প্রধান হলেন, কমিশনার সাঈদ। প্রায় ৫ হাজার দোকান আছে। প্রতি দোকান থেকে সাপ্তাহিক চাঁদা ৫শ টাকা নেন এই প্রভাবশালীরা।

ফকিরেরপুল ইয়ংমেন্স ক্লাবের ক্যাসিনো বাণিজ্য নিয়ে এখনও অনেক অজানা কাহিনী পড়ে আছে বহু স্বাক্ষীর স্মৃতিতে। কিন্তু দেশ কাঁপানো ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের পরও এসব কথা আজও প্রকাশ্যে বলতে ভীত অনেকে, আশংকার বাস্তবতা দূর হয়নি এখনও। : বৈশাখী টেলিভিশন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

13 − 8 =