জামালপুরের ডিসির নারী কেলেঙ্কারী

জামালপুরের ডিসিকে ওএসডি করার সিদ্ধান্ত

জামালপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরের ভিডিও ফাঁসের ঘটনায় প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে তাকে ওএসডি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

রবিবার থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। পরবর্তীতে বিশদ তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী জানান, প্রাথমিক তদন্তের প্রেক্ষিতে তাকে ওএসডি করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আজ রবিবার এ বিষয়ে আদেশ জারি হবে। তিনি আরও জানান, বিষয়টি নিয়ে পূর্ণ তদন্ত শেষ পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলে জানানো হয় শনিবার।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমসহ ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে জামালপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরকে জেলা প্রশাসন অফিসের এক নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা যায়। ভিডিওটি প্রকাশের পর ডিসির বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় ওঠে। তবে, ভিডিওটি বানোয়াট বলে দাবি করেন ডিসি কবীর।

৪ মিনিট ৫৭ সেকেন্ডের ওই ভিডিওটিতে যে কক্ষটি দেখা যায়, সেটি জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের অফিস কক্ষে তার চেয়ারের ঠিক ডান পাশের ছোট একটি কক্ষ। ছোট এই কক্ষে একটি ছোট খাট বসানো হয়েছে। ভিডিওটিতে যে পুরুষকে দেখা যায়, তিনি জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর বলে দাবি করা হচ্ছে। আর, যে নারীকে দেখা যাচ্ছে তিনি এই জেলা প্রশাসকের মাধ্যমেই সম্প্রতি নিয়োগ পাওয়া একই অফিসের একজন এমএলএসএস বা পিয়ন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

eighteen + 4 =